Time ****** KMT(+3.00)

স্বাস্থ্য ও সমস্যা

**সেক্সের উপকারিতা**

স্বামী স্ত্রীর মধ্যে সেক্স বা যৌন সম্পর্কের সঙ্গে সুস্বাস্থ্যের সম্পর্ক ওতপ্রোত।

) আপনার হার্টকে ভাল রাখতে পারে সেক্স। কামোদ্দীপনা অনুভূতি যতো বেশি জোরালো, তার হার্ট ততো বেশি সক্রিয় বলিষ্ঠ।
) প্রোস্টেট ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিকে কমিয়ে দেয় শারীরিক সম্পর্ক।
) কর্মস্থলে নিজেকে গুটিয়ে রাখার প্রবণতা থাকে না। আগের চেয়ে বেশি বহির্মুখী ভাবধারা প্রকাশ পায় সার্বিক আচরণে। সমস্যা সমাধানের দক্ষতা সৃজনশীলতা বাড়ে।
) আপনাকে দেখে আরও তরুণ, সজীব প্রাণবন্ত মনে হবে।
) স্বাস্থ্যসম্মত সেক্স মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে।
) মস্তিষ্ককে সজাগ সক্রিয় করে তোলে

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

হোমিওপ্যাথি প্রচলিত চিকিৎসা পদ্ধতিসমূহের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ট চিকিৎসা পদ্ধতি। আজ থেকে প্রায় দুশত বছর আগে জার্মান চিকিৎসা বিজ্ঞানী ডাঃ স্যামুয়েল হ্যানিম্যান হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা বিজ্ঞান আবিষ্কার করেন। homeopathy ল্যাটিন শব্দ homeo-অর্থ সদৃশ এবং pathy অর্থ অসুখ। হোমিওপ্যাথিকে তিনি সংজ্ঞায়িত করেন এভাবে “সদৃশ সদৃশকে নিরাময় করে“। অর্থাৎ যে ঔষধ সুস্থ শরীরে রোগ সৃষ্টি করতে সক্ষম উহা সূক্ষ মাত্রায় খাওয়ালে তা নিরাময় যোগ্য। ডাঃ স্যামুয়েল হ্যানিম্যান ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ডিগ্রীধারী একজন এলোপ্যাথিক মেডিসিন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, সার্জন এবং মেডিক্যাল কলেজের অধ্যাপক। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে সকলেই একমত হবেন, তিনিই হলেন সর্বশ্রেষ্ট চিকিৎসা বিজ্ঞানী, একজন সত্যিকারের চিকিৎসক। চিকিৎসা বিজ্ঞানকে বাণিজ্যের পর্যায় থেকে তিনিই সেবার পর্যায়ে ফিরিয়ে এনেছিলেন। ১৭৯০ থেকে ১৮৫৫ পর্যন্ত এই দীর্ঘ সময়ে তিনি হোমিওপ্যাথির মুল সুত্রগুলি আবিষ্কার করেছেন, গবেষণা ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে পর্যায়ক্রমে তাদেরকে সংশোধন-পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করেছেন। নতুন নতুন ঔষধ, ঔষধের মাত্রাতত্ত্ব, ঔষধের শক্তিবৃদ্ধি করণ প্রক্রিয়া আবিষ্কার করেছেন। এবং সেই সঙ্গে আবিষ্কার করেছেন জটিল রোগের চিকিৎসা পদ্ধতি । তিনি তাঁর সমস্ত আবিষ্কারকে তিনটি মৌলিক পুস্তকে লিপিবদ্ধ করে গেছেন এবং তাঁর জীবদ্দশায় তিনি বিভিন্ন সংশোধনীর পর অনেকগুলি এডিশন বের করেছেন। হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের পাঠ্যপুস্তকরূপে বিবেচ্য এই বইগুলো হলো-
1.                 Organon of Medicine
2.                 Materia Medica Pura
3.                 Chronic disease
তাছাড়া লেসার রাইটিংস নামে তাঁর আরেকটি মৌলিক গ্রন্থবিদ্যমান আছে যাতে তাঁর ছোট ছোট সমস্ত গবেষণা প্রবদ্ধগুলি সংকলিত হয়েছে।
হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসাই একমাত্র শতভাগ বিজ্ঞানসম্মত। আর একারণেই হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় প্রায় সকল রোগই সম্পূর্ণ নির্মুল হয়ে যায়। পক্ষান্তরে অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতিতে কোন রোগই সম্পূর্ণ নির্মুল হয় না বরং কিছু সময়ের জন্য চাপা পড়ে মাত্র। আবার অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায় ছোট-খাটো রোগ চাপা পড়ে কিছু দিন পর বড় বড় রোগে রূপান্তরিত হয়ে আত্মপ্রকাশ করে। প্রচলিত অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতির ঔষধে মারাত্মক ক্ষতিকর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে, পক্ষান্তরে হোমিও ঔষধের ক্ষতিকর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই বললেই চলে বরং প্রত্যেকটি ঔষধেরই ক্রিয়াকাল নির্দিষ্ট এবং সুনির্দিষ্ট ক্রিয়ানাশক রয়েছে। কাজেই সূস্থ দেহ ও স্বাভাবিক জীবন যাপনের জন্য যত জটিল সমস্যাই হোক না কেন একজন বিশেষজ্ঞ হোমিও চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

ডা: আহমদ ইমতিয়াজ
ডি.এইচ.এম.এস (ঢাকা) ফার্মাসিস্ট ও হোমিওপ্যাথ
বিস্‌মিল্লাহ্‌ হোমিও ফার্মেসী
৬৫ আর. কে. মিশন রোড, জজগলি, গোপীবাগ, ঢাকা-১২০৩
মোবাইল: ০১৯১৪৪৪০৪৩০ ই-মেইল a_imtiaj@yahoo.com 


যৌন সমস্যাগুলোর সমাধান                            

সমস্যা আমার যৌন ক্ষমতা কম

সমাধানঃ ক্ষমতা কম বলতে সাধারণত সবাই বেশীক্ষণ ইন্টারকোর্স (মিলন) করতে না  পারাকে ইন্ডিকেট করেন এটা কোনো সমস্যা নয় ইজেকশন (বীর্জশ্খলন) মানসিক  প্রক্রিয়া দ্বারা প্রভাবিত হয় উত্তেজিত অবস্থায় দ্রুত ইজেকশন হয় আবার টেনশনে বা  অন্যমনস্ক থাকলে দীর্ঘ বিরতির পর ইজেকশন হয় প্রাকটিসের মাধ্যমে রোগী নিজেই  সমস্যার সমাধান করতে পারেন

 

সমস্যা ‍: আমি / মিনিটের বেশী স্পার্ম ধরে রাখতে পারি নাআমার কি চিকিৎসার  দরকার?

সমাধানঃ উত্তেজিত অবস্থায় - মিনিটেই ইজেকশন (বীর্জশ্খলন) হতে পারে যা স্বাভাবিক অবস্থায় আরো দেরীতে হয় মাস্টারবেশন  সেক্স দুটো ভিন্ন জিনিষ মাস্টারবেশনের সময় শুধু কামভাব নিবারিত  হয় বলে দ্রুত বীর্যশ্খলন হয় কিন্তু সেক্স ভালোবাসার সাথে রিলেটেড বিয়ের পর ১ম  ১মাস আপনি এধরণের সমস্যায় পড়তে পারেন তবে প্রাকটিসের মাধ্যমে নিজেই তা  সারিয়ে ফেলতে পারবেন 

সমস্যা  : নরমাল সেক্স টাইম কতকতক্ষণ সেক্স করলে কোনো মেয়েকে  সেটিসফেকশন দেয়া সম্ভব?

সমাধানঃ মেয়েদের সেক্সের ধরণ  ছেলেদের ধরণ আলাদা ছেলেদের সেক্স বীর্জপাতের সাথে সম্পর্কিতমেয়েদের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা মানসিক ক্লাইটোরিয়াস নামের একটি অংশ মেয়েদের উত্তেজনা প্রদান করে একটি নির্দিষ্ট সময় পর উত্তেজনা প্রশমিত হয় ব্যাপারটিকে অর্গাজম বলে মেয়েদের ক্ষেত্রে টাচিংরাবিং ইত্যাদি প্রাথমিক ঘটনা থেকেই সেক্স  শুরু হয় উত্তেজিত থাকলে তারা - মিনিটেই সেটিসফেকশন পেতে পারে  উত্তেজনা না থাকলে ঘন্টার পর ঘন্টা তারাআনসেটিসফাই থাকতে পারে তাদের ক্ষেত্রে  নির্দিষ্ট কোনো ধরাবাধা সময় নেই

সমস্যা :‍ মাঝে মাঝে আমার পেনিস দিয়ে পিচ্ছিল কিছু তরল বের হয় এটা কি সমস্যা?

সমাধানঃ বাংলায় এগুলোকে যৌনরস বলে উত্তেজিত অবস্থায় এটা বের হয়ে পেনিসকে পিচ্ছিল করে যাতে পেনিস সহজে ভ্যাজাইনাতে প্রবেশ করে

সমস্যা :‍ বিবাহিত জীবনে সুখি হবার উপায় কি?

সমাধানঃ‍‍ সঠিক ট্রিকস জানা থাকলে যে কেউ সুখি হতে পারে টোটকা ওষুধ বা ভায়েগ্রা জাতীয় মারাত্মক ক্ষতিকর কোনো ওষুধ সেবন করবেন না একটি সার্থক সেক্স  অনেকাংশেই নির্ভর করে উভয়ের ভালোবাসার উপর কারণ পুরো ব্যাপারটি মানসিক যৌন জীবনে বিশ্বস্থ থাকুন সিফিলিস  এইডসের মত ভয়াবহ রোগ থেকে দূরে থাকুন

 

†nvwgIc¨vw_K wPwKrmvq †h †Kvb †hŠb†ivM Av‡ivM¨ m¤¢e| hw` mgm¨v †ekx g‡b K‡ib Zvn‡j †`ix bv K‡i we‡klÄ wPwKrm‡Ki civgk© wbb|

 wem&wgj­vn& †nvwgI dv‡g©mx

65, †MvwcevM RR Mwj, XvKv-1203|

‡gvevBj: 01914440430| 

 

যৌন মিলনের সময় করনীয়

 

. সঙ্গিনীর দেহে প্রবেশ এর পূর্বে আপনার যৌনাঙ্গ দিয়ে তার যৌনাঙ্গে হালকা ভাবে   আদর করুন , সঙ্গীকে জানান যে আপনি এখন প্রবেশ করতে যাচ্ছেন, এর ফলে সে   আপনাকে ভিতরে নেয়ার জন্য মানসিক ভাবে প্রস্তুত হবে 

. কক্ষনোই জোর করে ঢুকার চেষ্টা করবেননা , যদি দেখেন যে আপনার সঙ্গিনীর   যৌনাঙ্গ আপনাকে নেয়ার জন্য প্রস্তুত নয় তবে তাকে আশ্বাস দিন যে অসুবিধা নেই ,   সঙ্গিনীকে  রাগ দেখাবেন না  যৌনাঙ্গ সবসময় এক ধরনের Response নাও দিতে  পারে। যদি রাগ  দেখান তাহলে পরবর্তীতে সে উত্তেজিত হবার বদলেভয় পাবে এবং   তার মস্তিস্ক Response করতে প্রচুর সময় নিবে 

. প্রবেশ এর পর আস্তে আস্তে আদর করুন , সঙ্গিনীকে মন থেকে ভালোবাসার কথাবলুন , তার সারা শরীরএ হাত বুলান মনে রাখবেন যে , যদি আপনার সঙ্গী আপনার কাছ  থেকে ভালবাসা পূর্ণ শারীরিক আদর লাভ করে তাহলে এটি তার কাছে আনন্দময় মুহূর্ত হিসেবে গণ্য হবে , এবং তা সুখকর স্মৃতি হিসেবে তার মস্তিস্কে জমা হবে  ফলাফল হিসেবে পরবর্তীতে যৌন মিলনের সময় তার Response অনেক ভালো হবে 

. সঙ্গিনীকে ব্যথা দিবেন না  মাঝে মাঝে প্রশ্ন করুন যে তার কেমন লাগছে  যদি দেখেন যে আপনার সঙ্গিনীর যোনি রস কমে আসছে বা শুকিয়ে আসছে তাহলে সঙ্গম শেষ করে দিন , জোর করে দীর্ঘায়িত করবেন না 

. মিলনের এক পর্যায়ে যখন আপনি অনুভব করছেন যে আপনার একটি শিরশিরে অনুভূতি হচ্ছে , এবং এই অনুভূতি আর একটু বাড়লেই আপনার বীর্যপাত হয়ে যাবে ,  তখন কোমর সঞ্চালন বন্ধ করুন  চুপচাপ সঙ্গিনীর উপর শুয়ে থাকুন এবং তাকে গলায় বা কানে চুমু দিন। চোখ বা চুলের প্রশংসা করুন  আলতো ভাবে তাকে আদর করুন  এতে আপনার মনোযোগ অন্য দিকে সরবে এবং শিরশিরে অনুভূতি কমে গিয়ে যৌনাঙ্গ আবার স্বাভাবিক হবে  এরপর আবার মিলন শুরু করুন  প্রক্রিয়া টি - বার এর বেশী প্রয়োগ করবেন না 

. আসন পরিবর্তন করুন  এক এক দম্পতি এক এক আসনে তৃপ্তি বোধ করেন , তাই ধীরে ধীরে জেনে নিন আপনাদের কোন আসন পছন্দ  সেগুলো প্রয়োগ করুন 

. মিলনের সময় যদি অল্প সময়ে নারী সঙ্গির যোনি রস শুকিয়ে আসে , বা পুরুষ সঙ্গির লিঙ্গতেমন শক্ত না হয় , বা দ্রুত বীর্যপাত হয়েযায় তাহলে সঙ্গীকে দোষারোপ করবেন না নিয়মিত যৌন জীবন এর মাঝে মাসে - বার এরকম হতেই পারে  

সঙ্গীকে জানান যে কোন অসুবিধা নেই  পরের বার ভালো হবে  প্রত্যেক বার যে পূর্ণ যৌন মিলন করতেই হবে এমন কথা নেই |

. এক এক দম্পতি উত্তেজিত হবার এক এক নিয়ম ( যেমন , চুম্বন  )  একক সিদ্ধান্ত নেবেন না  আপনার সঙ্গী যদি কোনটি পছন্দ না করেন তবে সেটি  করবেন না 

.আপনার ইচ্ছা করছে কিন্তু আপনার সঙ্গীর করছেনা  তাহলে নিজেকে সংযত করুন 

 

সহবাসের পর

সহবাসের পরে দুজনেরই উচিত কমপক্ষে এক পোয়া গরম দুধ, একরতি কেশন  দুই তোলা মিশ্রি সংযোগে সেবন করা। সহবাসে কিছু শক্তির হ্রাস তে পারে। এতে করে কিঞ্চিৎ পূরণ হয়। অন্যথায় সহবাস করা উচিত q পুষ্টিকর খাদ্য না খেলে পুরুষ অচিরেই শক্তিহীন য়ে পড়ে  তার কর্মশক্তি লোপ পায়।
অত্যধিক মৈথুনের জন্য হজমশক্তি লোপ পায়। ফলে অম্ল, অজীর্ণ প্রভৃতি নানা প্রকার রোগ দেখা দেয়। এই সমস্ত রোগের হাত থেকে নিশ্চিত ভাবে নিষকৃতির জন্য মৈথুনের পর দুগ্ধ পান অত্যাবশ্যাক। অবস্থায় সম্ভব হলে নিম্নের টোটকাগুলি ব্যবহার করলে ভয়ের কারণ থাকবে না।
(
) বাদাম দুই তোলা ভালভাবে বেটে নিয়ে তা মিশ্রি সংযোগে মৈথুনের পর গরম করে খেলে বিশেষ উপকার হয়।
(
) দুতোলা ঘি, দু তোলা মিশ্রি কিংবা গুড়ের সঙ্গে মিশিয়ে সেবন করলে সহজে ক্ষয় পূরণ হয়।
(
) মুগের ডাল ভালভাবে বেটে নিয়ে ভেজে নিন, পরে মিশ্রি কিংবা চিনি মিশিয়ে নাড়ার মত করে চার তোলার মত মৈথুনের পর খেয়ে নিলে উপকার হয়।


** 
রাত্রির প্রথম  শেষ প্রহর বাদে মধ্যম অংশই সহবাসের পক্ষে উৎকৃষ্ঠ সময়। সহবাসের পর ঘুম একান্ত আবশ্যক-তদাই শেষ রাতে সহবাস বাঞ্ছনীয় নয়। সহবাসের পর অধিক রাত্রি জাগরণ, অধ্যয়ন, শোক প্রকাশ, কলহ কোন দুরূহ বিষয় নিয়ে গভীর চিন্তা  মানসিক কোন উত্তেজনা ভাল নয়

** সহবাসের পর দুজনের কিছুক্ষণ পরস্পর সংলগ্ন য়ে অবস্থান করবে। এতে মানসিক তৃপ্তি হয়। ধীরে ধীরে দেহ শীতল হয়। এতে প্রেম দীর্ঘস্থায়ী য়ে থাকে

** তারপর অবশ্য প্রত্যেকেই নিজ নিজ যৌনাঙ্গ ভালভাবে ধৌত করবে-এটি অবশ্য পালনীয়। তবে কিছুক্ষণ পর। সহবাসের সঙ্গে সঙ্গে পুরুষাঙ্গ ধৌত করলে  নপুংষকতার লক্ষণ প্রকাশ পায়। সেজন্য রতিক্রিয়ার কিছু সময় পরে পুরুষাঙ্গ ধৌত করা  বিধেয়। 

** শর্করা মিশ্রিত এক গ্লাস পানি কিঞ্চিৎ লেবুর রস বা দধি কিংবা শুধু ঠাণ্ডা পানি কিছু  খেতে হবে। এতে শরীরের মঙ্গল করে।

**  ‡Mvmj করা একান্ত আবশ্যক

সেক্স সম্পর্কে জানা মানেই হচ্ছে নিজের সম্পর্কে জানা। অথচ লজ্জা বা আড়ষ্ঠতারকারণে অনেকেই সেক্স নিয়ে খুব একটা ভাল ধারণা রাখেন না। ফলে ব্যক্তিগত 

যৌনজীবন হয়ে  পড়ে একঘেয়েমীপূর্ণ এবং বৈচিত্র্যহীন। আবার 

অজ্ঞতার কারণে বিভিন্ন রকম যৌন  সমস্যায় পতিত হওয়ার সম্ভাবনাও থাকে। 

এসব সমস্যা থেকে উত্তীর্ণ হতে সেক্স সিক্রেট জানাটা গুরুত্বপূর্ণ।

সেক্সের সময় কি পরিমাণ ক্যালোরি ক্ষয় হয়?

১২০ পাউন্ড ওজনের একজন মহিলা প্রতি ৩০ মিনিটে ১১৫ ক্যালরি ক্ষয় করে।

দ্য ফোর সিক্রেটস অফ আমাজিং সেক্স’ এই গ্রন্থে লেখক জর্জিয়া ফস্টার এবং বেভারলি এনি ফস্টার চারটে নিয়মের কথা বলেছেন৷ তাদের মতে যৌন মিলনের আগে শরীরের তুলনায় মানসিক ভাবে প্রস্তুতি নেওয়াটা জরুরি৷ মানসিক ভাবে আপনি যদি যৌন মিলনের জন্য তৈরি থাকেন তাহলেই আপনি এর চরম সুখ লাভ করতে পারবেন৷

সিডাকশানবেশীরভাগ মানুষই মনে করে যৌন মিলনের আগে নিজেদের যৌন উত্তেজনাবাড়াতে হবে৷ না সেটা একেবারেই ভুল ধারনা৷ আগে মনেপ্রাণে যৌন চেতনা জাগান৷ যৌনমিলনের আগে মানসিক ভাবে প্রস্তুতি নিন৷ আপনি কখনই ভাববেন না আপনার পার্টনারে যৌন উত্তেজনা নিমেষেই বেড়ে যাবে৷ মানসিক ভাবে অনুভব করার পরেই এটা বাড়ানো  সম্ভব৷

সেনসেশানযৌন মিলনের ক্ষেত্রে সিক্স সেনস একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়৷ সেক্ষেত্রে আপনি এবং আপনার পার্টনার উভয়েরই ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়কে জাগ্রত করতে হবে৷ কারণ যৌন মিলনের সময়ে প্রচুর এনার্জীর প্রয়োজনজয়৷ এনার্জী লাভের জন্য ষষ্ট ইন্দ্রিয়কে জাগানো জরুরি৷

সারেন্ডারতৃতীয় চাবিকাঠিটা হল নিরাপত্তা৷ যৌন মিলনের সময় আপনি যদি নিশ্চিন্তে আপনার পার্টনারের কাছে নিজেকে সপে দিতে পারেন তাহলেই আপনার যৌন মিলন সফল হবে৷ এর জন্য পার্টনারের কাছে আপনি যে নিরাপদ রয়েছে সেই মানসিক ভাবনাটা থাকা জরুরি৷

রিফ্লেকশানআপনি যদি প্রথম তিনটে নিয়্ম ভ্রুনাক্ষরে পালন করে তাহলে আপনি আপনার অভিজ্ঞতাতেই এর প্রতিবিম্বটা খুঁজে পাবেন৷ পুণরায় যৌন মিলনের আগ্রহ আপনার মনে জাগবে৷

 

ভালোবাসা প্রকাশের এক গুরুত্বপূর্ণ দিক শারীরিক মিলন৷ আবার শারীরিক প্রয়োজনীয়তার একপ্রকার বহিঃপ্রকাশ সেক্স্যুয়াল অ্যাক্টিভিটি৷ কিন্তু আপনি জানেন কি শারীরিক চাহিদা বা ভালোবাসা প্রকাশের দিক ছাড়াও এর অনেক গুণ আছে যার ফলে আপনার ব্যক্তিজীবন আনন্দে ভরপুর হয়ে উঠতে পারে

ভালো ব্যায়াম : শারীরিক মিলনের সময়ে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ যেভাবে সঞ্চালিত হয় তার মাধ্যমে ব্যয়াম কার্য খুব ভালো ভাবে সম্পাদিত হয়৷ এর দ্বারা প্রচুর ক্যালোরি খরচ হয়ফলে কোলেস্টেরলের মাত্রা কম হয়রক্তপ্রবাহ ভালো হয়শারীরিক মিলন কার্যে আপনি 30 মিনিট লিপ্ত থাকলে আপনার 85 ক্যালোরি খরচ হয়৷ আপনি এক সপ্তাহ নিয়মিত হাঁটাচলা করলে যে পরিমান ক্যালোরি খরচ হয়সপ্তাহে তিন দিন নিয়মিত ভাবে শারীরিক মিলনে লিপ্ত হলে আপনার সেই পরিমান ক্যালোরি খরচ  হবে৷ সারা বছর নিয়মিত রূপে শারীরিক মিলনে লিপ্ত হতে পারলে 75 মাইল জগিং করার সমান ক্যালোরি আপনার শরীর থেকে নির্গত হবে৷

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাঁড়ায় : রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার ক্ষেত্রে অর্থাত আমাদের ইমিয়্যুন সিস্টেম ঠিক রাখতে সাহায্য করে আমদের শারীরিক মিলন প্রক্রিয়া৷ রোগ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে এটি থেরাপির মত কাজ করেএর মাধ্যমে পাচন কার্য ঠিক হওয়ার ফলে রোগ  প্রতিরোধক ক্ষমতা সুদৃঢ় হয়৷

জীবন কাল বাড়ে : নিয়মিত সেক্স্যুয়াল অ্যাক্টিভিটি আপনার আয়ু বাঁড়ায়৷ এর মাধ্যমে শরীরের সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ এবং সব তন্ত্র খুব ভালো ভাবে কাজ করে৷ কারণ শারীরিক কার্যকলাপ শরীরের বিভিন্ন কোষের মধ্যে অক্সিজেনের মাত্রা বৃদ্ধি করে বিভিন্ন অঙ্গগুলিকে সচল রাখতে সাহায্য করে৷ একদিকে যেখানে সেক্স্যুয়াল অ্যক্টিভিটির দ্বারা শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা সঠিক থাকে তেমনি কোলেস্টেরলের মাত্রা ধীরে ধীরে কমতে থাকে৷ সপ্তাহের তিন বার বা তার থেকে বেশী বার শারীরিক মিলন হার্টঅ্যাটাকের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়৷

ব্যাথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় : বিভিন্ন অধ্যয়নের দ্বারা জানা গেছে শারীরিক মিলনের ফলে মাথা এবং হাড়ের জয়েণ্টের ব্যাথার ক্ষেত্রে আরাম পাওয়া যায়৷ ওর্গাজমের আগে অক্সিটোসিন হর্মোনের স্তর সামান্য থেকে পাঁচ গুন বেঁড়ে যাওয়ায় এণ্ড্রোফিন হর্মোন নিংসৃত হতে থাকার ফলে মাথা ব্যাথামাইগ্রেন আর আর্থারাইটিসএর ব্যাথা থেকে আরাম পাওয়া যায়৷ তাই ব্যাথা কমানোর ওষুধ না খেয়ে শারীরিক মিলনের আনন্দ উপভোগ করুন আর ব্যাথা থেকে নিষ্কৃতি পান৷

পিরিয়ডের সময় ব্যাথা কম হয় : যে সব মহিলাদের সেক্স্যুয়াল লাইফ খুব ভালো হয় তাদের পিরিয়ডের ক্ষেত্রে সমস্যা কম হয়৷ সাধারণতঃ পিরিয়ডের সময় মহিলাদের খুব বেশী ব্যাথা হযে থাকে৷ যাদের সেক্স্যুয়াল লাইফে কোন প্রকার অসুবিধা থাকে না তাদের এই সময়ে ব্যাথার অনুভুতি কম হয়৷ আর শরীরিক মিলনের দিক ঠিক থাকলে পিরিয়ডের আগে মহিলাদের মধ্যে অনেক সময় যে সমস্যা দেখা যায় তাও থাকে না৷

মানসিক অশান্তি থেকে মুক্তি : মানসিক প্রশান্তি আনার দিক থেকে নিয়মিত শারীরিক মিলনের অভ্যাস সবথেকে ভালো৷ কারণ শারীরিক মিলনের ফলে মন উত্ফুল্ল থাকে ফলে মানসিক অশান্তি কম হয়৷

ভালোবাসা বাড়ে : শারীরিক মিলনের আকর্ষনের ফলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দূরত্ব কম হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মনে খুশী সঞ্চারিত হয়৷ মনের উদাসিনতা দূর করতে এই কার্যকারীতা ভীষণ জরূরী৷ মানসিক দিক থেকে বিরক্তির নানা কারণ শারীরিক মিলনের ফলে দূর হয়ে যায়৷ এই সান্নিধ্যের ফলে সঙ্গীর সঙ্গে সম্পর্ক ভালো হয় এবং দুজনের মধ্যে ভালোবাসা বাড়ে৷ যে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক উন্নতমানের তারা তাদের সম্পর্কের ক্ষেত্রে কোন সমস্যায় পড়লে তার সমাধান একসঙ্গে করতে পারেন৷

কাজ করার ক্ষমতা বাড়ে : শারীরিক মিলনের সময় হরমোন নিঃসরণ হয় তাই মন শান্ত থাকে আর নিরন্তর কাজের ক্ষমতা বাড়তে থাকে৷ নিয়মিত ভাবে শারীরিক মিলনের ফলে ব্যক্তির যৌবন অনেক দিন পর্যন্ত বর্তমান থাকে৷ এর মাধ্যমে ফিটনেস লেবেল বাড়ে৷ শারীরিক মিলনের ফলে ব্যক্তি সারাদিন স্ফুর্তি অনুভব করে৷ সারাদিনের কাজে এই স্ফুর্তির প্রভাব দেখা যায়৷ এর দ্বারা সারাদিনের ক্লান্তি থেকে এবং নানা রোগের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়৷

ভালো ঘুম হয় : শারীরিক মিলনের ফলে অক্সিটোসিন হরমোন রিলিজ হয়ফলে মিলনের পরে ঘুমও খুব ভালো হয়৷ তাই যাদের ঘুমের ক্ষেত্রে কোন অসুবিধা আছে তারা অতি অবশ্যই এই পদ্ধতি অবলম্বন করে দেখতে পারেন৷

আত্মবিশ্বাস বাড়ে : শারীরিক মিনলের ফলে ব্যক্তির মনে স্বকারাত্মক চিন্তা করার ক্ষমতা বাড়ে৷ তার ভেতর কার সন্তুষ্টি তার মানসিক প্রশান্তি তার মধ্যে আত্মবিশ্বাসের পরিমান বাড়িয়ে তোলে৷

ওজন কমে : শারীরিক মিলনের ফলে প্রচুর পরিমান ক্যালোরি কম হয় তার ফলে ব্যক্তির ওজন কম হয়৷ নিয়মিত ভাবে শারীরিক মিলনের ফলে পেটের স্থূলতা কম হয়আর মাংসপেশীতে জড়তা কম দেখা যায়৷

সৌন্দর্য্য বাড়ে : শারীরিক মিলন কালে হরমোন নিঃসরনের ফলে রক্তপ্রবাহের মাত্রা বেড়ে যাওয়াতে তার প্রভাব পড়ে ত্বকের ওপরে৷ তার ফলে সৌন্দর্য্য বেড়ে ওঠে৷ আপনার সারা শরীরের মাদকতা আপনার মধ্যে গ্লো আনে৷ শারীরিক মিলন কালে মহিলাদের শরীর থেকে এস্ট্রোজেন হরমোন নিংসৃত হতে থাকেযার দ্বারা তাদের চুল এবং ত্বক আকর্ষনীয় হয়ে ওঠে৷

ভালো ত্বক : শারীরিক মিলনের সময় সারা শরীরে একপ্রকার ম্যাসাজ চলে তার দ্বারা রিল্যাক্সেশনের ফলে শরীরে কোন প্রকার দাগ থাকে না বা তা ধীরে ধীরে লুপ্ত হতে থাকে৷

প্রোস্টেটে ক্যান্সার প্রবণতা কম হয় : নিয়মিত শারীরিক মিলনের ফলে প্রোস্টেটে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়৷

হাপানি বা জ্বর থেকে মুক্তি : শারীরিক মিলনকে ন্যাচারাল অ্যাণ্টি হিস্টামাইন রূপে দেখা হয়৷ এর দ্বারা নাক বন্ধ থাকলে তা খুলে যায়৷ আর যাদের ফুসফুসের সমস্যা বা জ্বর হয় তাদের সমস্যার সমাধানও হয়ে থাকে৷

কার্ডিওভাস্কুলার এর ক্ষেত্রে উন্নতি : মহিলারা শারীরিক মিলনের সময় উত্তেজিত হয়ে উঠলে তাদের হার্টের গতি বেড়ে যায়ফলে তাদের কার্ডিওভাস্কুলার এর সমস্যার সমাধান হয়ে থাকে৷

বিস্বস্ত তা বাড়ে : স্বামীস্ত্রীর মধ্যে শারীরিক মিলনের বোঝা পড়া ঠিক থাকলে তার একে ওপরকে কখনও ঠকায় না৷ তাদের ঘনিষ্ঠতা তাদের এমন কাজ করতে দেয় না৷

রক্তের প্রবাহ বৃদ্ধি পায় : শারীরিক মিলনের সময় ব্যক্তির উত্তেজনা বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে তার সারা শরীরে রক্তপ্রবাহের মাত্রা বেড়ে যায়৷ এর ফলে সারা শরীরের প্রতিটি কোষে সঠিক মাত্রায় অক্সিজেন পৌঁছায়৷

বহু যুগ ধরে যৌণতা সম্পর্কে নানা সত্যমিথ্যা ধারণা আমাদের মধ্যে প্রচলিত আছে৷ সেই ধারনাগুলি সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত আপনাদের জানানো হল৷ 

 

 

1.*মিথ : যৌনাঙ্গের পরিমাপ প্রভাবিত করে

 

একজন মহিলার সেক্স সেশনকে বেশী মাত্রায় পরিতৃপ্ত করতে তার পুরুষ সঙ্গীর যৌনাঙ্গের আকার  আকৃতি বা পরিমানপরিমিতি প্রভাবিত করে না৷ এর পরিমিতি মহিলার যৌন চাহিদা পরিতৃপ্ত করতে পারে না৷ যখন সাইজের প্রশ্ন আসে তখন সবার জন্য এক রকম সাইজ কার্যকরী হয় না৷ তাই যৌণ কার্যে এটি একটি আপেক্ষিক বিষয়৷ 

 বেশী বড় পুরুষ যৌনাঙ্গ কখনই মহিলাদের খুব বেশী stimulate করতে পারে না৷ যৌন কার্যকালে গর্ভাশয়ের আগে পর্যন্ত পুরুষ যৌনাঙ্গ পৌঁছলেই তা পরিতৃপ্তির কারণ হয়৷ তা না হলে সঙ্গমকালীন যৌন পরিতৃপ্তি তেমন সুখকর হয়ে ওঠে না৷ এই পরিস্থিতিতে ক্ষেত্রে মহিলারা satisfied হয় না৷ 

 

 

2. *মিথ : সঙ্গম যত বেশী তত ভালো

 

সঙ্গমকালীন অনুভুতি আপনি কেমন করে মিলিত হচ্ছেন তার ওপর নির্ভর করেআপনি কতবার সঙ্গম করছেন তার ওপর নির্ভরশীল নয়৷ আমাদের মধ্যে ধারণা আছেয্তবেশী বার সঙ্গমে লিপ্ত হওয়া যায় শারীরিক ক্ষেত্রে তার খুব ভালো ফল পাওয়া যায়৷ আপনার শারীরিক সক্ষমতা বা আপনার সুস্থ স্বাভাবিক শারীরিক অবস্থা আপনাকে যৌন মিলনে আকর্ষিত করেএমন কিন্তু নয়বা সুস্থ-স্বাভাবিক ভাবে প্রতিনিয়ত কয়েকবার যৌন মিলন আপনার শারীরিক সুস্থতা বাড়ায়এই ধারণা ভুল৷ 

 

কতবার বা কতক্ষণ ধরে সেক্স্যুয়াল অ্যাক্টিভিটি হচ্ছে তা গুরুত্ব পূর্ণ নয়৷ যৌনতা নিবৃত্তি করাই যৌন মিলনের মূল বিষয় নয়এটি এক চরম আনন্দ যা দুজনে একসঙ্গে একভাবে অনুভব করে৷ 

 

 

3. মিথ : যৌন মিলনের পদ্ধতি সকলেই জানে

 

প্রথমবার যৌণ মিলনকালে প্রত্যেকেই এই ঘটনার জন্য কৌতুহলী থাকে৷ অত্যধিক আগ্রহ বা কৌতুহল বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে শীঘ্রপতনের সমস্যার সৃষ্টি করে৷ এছাড়া সঠিক পদ্ধতিতে যৌনকার্য সম্পাদিত হয় না৷ প্রথম মিলন কালীন সৃষ্ট এই অসুবিধাকে বলা হয় performance anxiety যখন কোন জুড়ি প্রথমবার মিলনে আবদ্ধ হচ্ছেন তার আগে এবিষয়ে সঠিক ভাবে জেনে নেওয়া ভীষণ জরুরি৷ 

 

যৌন ইচ্ছা মানুষের জন্মের সঙ্গে সঙ্গে তার মধ্যে চলে আসে  এটি জন্মগত প্রাপ্ত একটি কামনা যা প্রত্যেক প্রাণীর মধ্যে দেখা যায়৷ আর প্রাকৃতিকগত ভাবেও এই ইচ্ছাটি আমাদের মধ্যে চলে আসে৷ কিন্তু এই কাজের পদ্ধতি আমরা শিখি না৷ যৌন সঙ্গম নিয়ে যে সকল অবিচ্ছিন্ন ধারণা আমাদের মধ্যে প্রচলিত আছে তা থেকে বেড়িয়ে আসতে বা এই প্রক্রিয়া সম্পর্কে সঠিক ধারণা তৈরি করতে আমাদের এই বিষয়ে সিক্ষা গ্রহণ করা উচিত৷ যৌন মিলন যেকোন স্বাভাবিক মানুষের ক্ষেত্রে অতি প্রয়োজনীয় একটি চাহিদা তাই এর সঠিক প্রগোগ কৌশল জানা আমাদের একান্ত জরুরী৷ 

 

 

4. মিথ : পুরুষের যৌন চাহিদা বেশী থাকে

 

যৌনতায় পুরুষ এবং স্ত্রী উভয়েরই সমান আগ্রহ থাকে৷ বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে পুরুষ ভালোবাসে যৌন পরিতৃপ্তি পাওয়ার জন্য৷ আর মহিলাদের ক্ষেত্রে ঘটনাটি ঘটে ঠিক উল্টো৷ অর্থাত মহিলারা যৌন মিলনে এগিয়ে আসে ভালোবাসা পাওয়ার জন্য৷ যৌন মিলন ভালোবাসার পরিনতি হতে পারেএর উল্টোটা কখনই হয় না অর্থাত যৌন মিলনের ফলে ভালোবাসা সৃষ্টি হতে পারে না৷ 

 

মহিলারা তাদের শারীরিক চাহিদা সম্পর্কে এত মুখর হয় না৷ পুরুষ এই চাহিদার কথা অতি সহজেই বলতে পারলে  মহিলারা তাদের যৌন চাহিদার কথা খুব সহজে বলতে পারেন না৷ কিন্তু আজকাল দেখা যাচ্ছে মহিলারাও এই ব্যপারে তাদের মতামত বা চাহিদার কথা জানাতে বা বলতে দ্বিধা বোধ করছেন না৷

 

 

বাংলাদেশ একটি কনসারভেটিভ দেশতবে বর্তমানে এদেশের সেক্স কালচার অনেক ফাস্টঅনেককম বয়স থেকেই ছেলে মেয়েরা সব কিছু জানেবুঝে এবং করে ( বিশেষ করে শহরে ) কিন্তু সেক্সেরএট্রাকটিভ দিক গুলোতেই সবার সাভাবিক ভাবেই আকর্ষন বেশি এবং এসব সমন্ধে জানার আগ্রহথাকেবেশি তবে সেকসু্যাল সমস্যার বেপারে রয়ে গেছে ভয়ানক অগ্যতাএবং যা জানা থাকে তারবেশিরভাগি ভুল তথ্য আমি এই পোস্টে এইডস এর বেপারে কোনো আলোচনা করবো না কারনবিদেশি ফান্ডের সুবাদে এই সমন্ধে যথেষ্ঠ প্রচারনা হয় কিন্তু এইডস হচ্ছে একটি রেয়ার প্রবলেমএরথেকে কমন কমন সমস্যা সমন্ধে বেশিরভাগ মানুষের কোন আইডিয়া নাইযেসব সমস্যা ঘরেরকাছের সমস্যা আর কমন সমমস্যার নিয়ে অনেক আরটিকেল পেপার মেগাজিনে পরলেও এর সঠিকমেডিকাল সমাধান খুব কমি পরসি তাই আমি চেষ্টা করবো কমন লেংগুয়েজে শুধু মাত্র মোস্ট কমনকারোন গুলো উল্যেখ করার এবং সহজ সমাধান গুলো তুলে ধরার চেস্টা করলাম ছেলেদের কমনসেকসুয়াল সমস্যা এবং তার সমাধান

মেইল ইমপোটেন্স:

ছেলেরা যেই বেপারে সবচাইতে বেশি চিন্তিত থাকে সেটা হচ্ছে ইরেকশন প্রবলেম। যদিওএই সমস্যা মধ্যবয়সিদের মাঝে বেশি দেখা দেয়কিন্তু অনেকগুলো কারোনের জন্য দেশেরযুবক শ্রেনিদের মাঝেও এখন এই সমস্যা টা একটি বরো সমস্যা।

ধুমপানইউথ ইমপোটেন্স বা যুবকদের যৈন অক্ষমতার প্রধান কারন গুলোর মধ্যে একটিহচ্ছে ধুমপানবাংলাদেশের মোটামুটি সবাই ধুমপান করে যা নাকি ওয়ার্ল্ডের ওয়ান অফ দাহাইয়েস্ট। দেশে অনেক আজিরা কথা প্রচলিত আছে যেমন গোল্ড লিফ খেলে সেক্স পাওয়ারকমে যায়আর বেনসন খেলে তেমন একটা খতি হয় না। ইটস  বুলশিট। নিকোটিন সবসিগারেটেই আছে কম বেশি আর সিগারেটের অন্যান্য খতিকারক কেমিকাল গুলো সবসিগারেটেই সমপর্যায়ে থাকে। যেসবের কারনে পেনিসের রক্তনালি সংকচিত হতে থাকে

স্ট্রেসএটি পশ্চমা দেশ গুলোতে ইমপোটেন্সের প্রধান সমস্যা তবে দেশেও এটি একটিউল্যেখযোগ্য কারন। বিভিন্য কারনে যদি মাথায় বিভিন্য ধরনের টেনশন থাকে তাহলে ব্রেইনসেক্সের দিকে যথেষ্ঠ এটেনশন দিতে পারেন না। আপনার যদি সেক্স করার সময় ( এনাফ )ইরেকশন না হয়ে থাকেকিন্তু মর্নিং ইরেকশন ঠিক থাকে তাহলে মনে করবেন আপনারফিসিকাল পাওয়ার ঠিকি আছে কিন্তু স্ট্রেস বা অন্য কোন মানসিক সমস্যার কারনে মেন্টালকনসেনট্রেশন টা নেই। ড্রাগসড্বাগসের মধ্যে বিশেষ করে হেরোইন এর জন্য ইমপোটেন্সহতে পারে। কোকেইন সেবনে প্রথম দিকে সাময়িক ইরেকশন হলেও পরে সেটা আর হয় নাএবং উল্টো খতি করে।

ওভার এক্সপেকটেশনএটি আসলে কোন সমস্যা না এটি ভুল বুঝা বা জানার জন্য হয়।সেক্স কালচার বেশি অপেন হওয়াতে পর্ন দেখে বা মৈখিক মিথ্যরচনার কারনে দেশ বিদেশসব খানেই সেক্স পাওয়ার সমন্ধে ৯০ ভাগ মানুশের একটি ভুল ইমেজ তৈরি হয়েছে। এইবেপারে দেখা যায় যে মানুশ মনে করে তার হয়তো সেক্স পাওয়ার কমকিন্তু ডাক্তারের কাছেগেলে কোনকিছু ধরা পরে না ( যদিও দেশের ডাক্তাররা অযথা অনেক টেস্ট করাবে) ডাক্তারজিগ্যেশ করার পর দেখা যায় তার সেক্সয়াল একটিভিটি নর্মালি আছেকিন্তু পেশেন্ট সেটানিয়ে সন্তুষ্ট নয়। মানুস মনে করে যে ডেইলি এবং লং এনাফ সেক্স করতে না পারাটাইঅক্ষমতার লক্ষন। আবার অনেকে তার পেনিসের লেনথ নিয়ে খুশি নয়। এসব হচ্ছে অযথাটেনশনপর্ন মুভিতে যা দেখানো হয় সেটা নর্মাল সেকসুয়াল একটিভিটি নয়। আপনার বউ (সেক্সুয়াল পার্টনারকে জিগ্গেশ করুন যে সে সেটিসফাইড নাকিতাহলেই কিস্সা খতম।এক্সেসিভ পর্ন দেখার বদৈলতে আবার নিজের বউ বা সেকসুয়াল পার্টনারের প্রতি এট্রাকশনকমে যায় অনেকের।

জেনে রাখা ভালোএভারেজ সেক্সয়াল ফ্রিকয়েন্স হলো সপ্তাহে  বার।

ডিইরেশন ১৫ মিন। পেনিস লেনথ রেস অনুযায়ি ভেরি করে। ইউরোপ এমেরিকা১৪, সে.মিচায়নাজাপান১২ সে.মিসাবকন্টিনেন্ট ( ইন্ডিয়াবাংলাদেশ): ১৩ সে.মিথেরাপি:

সবচে এফেকটিভ থেরাপি হচ্ছে চেন্জ অফ লাইফ স্টাইল

-ধুমপান বন্ধ করুন। বেপারটি খুবি কঠিনএই বেপারেও আপনি সঠিক মেডিকাল গাইডপেতে পারেন আপনার ডাক্তারের কাছ থেকে।

-যথেষ্ঠ বেয়াম করুন। ফিসিকাল মুগমেন্ট ভায়াগরা বা অন্যান্য অষুধ থেকে অনেক বেশিএফেকটিভবিশেষ করে ইয়াং দের জন্য। -সেক্স বেপারটাকে স্পোর্টসের মতন দেখবেন না যেএটা তে আপনাকে ফার্সট প্রাইজ আনতেই হবে। বাট হালকা / রিলেক্স ভাবে নেন দেখবেনফার্সট প্রাইজ থেকা বেশি এনজয় পাচ্ছেন।

-ভায়াগ্রা থেরাপি ডাক্তারের পরামর্শ ছারা শুরু করবেন না। এতে সাময়িক উপকারিতা পেলেওলং টার্মের জন্য এফেকটিভ থেরাপি নয়। -

আল্টারনেটিভ ( ফুটপাথের সপ্নে পাওয়া ) ঔষধ থেকে ১০০ মাইল দুরে থাকুন )
মেয়েদের কমন যৌ অক্ষমতার সমস্যা:

মেয়েদের যৌ অক্ষমতার বেপারে রয়েছে আরো বেশি নলেজের অভাব। এ সম্পর্কে  ৯০ ভাগ মানুষই জানেন না।  এমনকি মেয়েরাও তাদের করণীয় বিষয় সম্পর্কে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগেন। 



ভাজাইনাল ড্রাইনেস এবং পেইনফুল ইন্টারকোর্স:

মেয়েদের বেলায় সেক্সুয়াল এরাউসালের ( যৌ উত্যেজনার ) সময় লুব্রিকেশন (যোনিরসহয়যার ফলে ভাজায়না ভিজে যায় এবং সেক্স করতে ( পেনিস ঢুকতে ) সুবিধা হয়। লুব্রিকেশনেরবেশির ভাগ ফ্লুইড (রসভাজাইনার দেয়াল থেকে নির্গত হয় তবে ছোট একটি গ্লেন্ড ( থলি)থেকেও কিছু বর হয়। অনেক মেয়েদের সমস্যা দেখা দেয় যে লুব্রিকেশন হয়না বা সময়মতহয়নাযার ফলে সেক্স এনজয়ের বদলে পেইনফুল হয় ( পেইনফুল ইন্টারকোর্স)বেশিরভাগমেয়েরা সেটা তার হাসবেন্ড কে জানায় না নিজের অক্ষমতা মনে করে। কিনতু এখানেখোলামেলা কথা না বললে সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়। ভাজাইনাল ড্রাইনেসের সবচে বরোকারনটা আসলে ছেলেদেরই দোষ। ইন্টারকোর্স ( ভাজিনাতে পেনিস প্রবেশেএর পুর্বে যথেষ্ঠস্টিমুলেশন ( যৈন উত্যেজনা ) না থাকলে লুব্রিকেশন সময় মতন হয় না। ইন্টারকোর্সের আগেযথেষ্ঠ সময় আর এটেনশন নিয়ে সেক্সয়াল স্টিমুলশন ( কিসিংসাকিং ) করলেই বেশিরভাগবেলায় এর সমাধান সম্ভব। ছেলেদের যেমন পেনিসে রক্তনালিতে ফেট ( চর্বি ) জমার কারনেইমপোটেন্সি হয় তেমনি মেয়েদের বেলাতেও তেমনি ভাজাইনাল ব্লাড ভেসেলের ( রক্তনালিতেচর্বি জমলে এই সমস্যা হতে পারে। তাই ব্লাড ভেসেলের চর্বি কমানোর চেস্টা করতে হবে।ফেট কম খাওয়াবেয়াম করাসিগারেট না খাওয়া হল এর উপায়।


আর্টফিসিয়াল লুব্রিকেশনএরপরেয় যদি এনাফ লুব্রিকশন না হয় এবং সেক্স পেইনফুলহয় তাহলে আর্টিসিয়াল লুব্রিকেশন ( নকল যোনিরসইউজ করা যায়। দেশের মেয়েরাসাধারনত তেল বা ভেসলিন  ইউজ করে থাকে কিন্তু এতে সমস্যা হচছে যে বেশি ইউজকরলে ভাজাইনার নরমাল বেকটেরিয়াল ফ্লোরা ( শরিরের জন্য উপকারি বেকটেরিয়া ) নষ্ট হয়এবং তাতে ঘন ঘন ভাজাইনাল ইনফেকশন হতে পারে। এর জন্য স্শেপয়াল আর্টিফিসিয়াললুব্রিকেশন পাওয়া যায় যা নাকি  ঘন পানির মতন হয়। এছাড়া যদি তেল বা ভেসেলিন ইউজ করা হয় তাহলে সেটা সেক্সের পরে পানি দিয়ে  ধুয়ে ফেলা বাঞ্ছনীয়


†nvwgIc¨vw_K wPwKrmvq †h †Kvb †hŠb†ivM Av‡ivM¨ m¤¢e| hw` mgm¨v †ekx g‡b K‡ib Zvn‡j †`ix bv K‡i we‡klÄ wPwKrm‡Ki civgk© wbb|

wem&wgj­vn& †nvwgI dv‡g©mx

৬৫, আর. কে. মিশন রোড, গোপীবাগ জজ লেন

ঢাকা-১২০৩। মোবাইল: 01914440430 

 

 

No comments:

Post a Comment